উদ্যোক্তা বন্ধু : শাহিন’স হেল্প লাইন

মো: আমিনুল ইসলাম র্দীঘদিন  ধরে চাকুরী করেছেন বিভিন্ন জাতীয় পর্যায়ের বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে । এরই ধারাবাহিকতায় নতুন একটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে  চাকরী নিয়ে চলে  গেলেন পটুয়াখালী । এর আগে কখনো ঢাকার বাহিরে থাকা হয়নি স্থায়ীভাবে । অন্যান্য বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে সময় কাটাতে গিয়ে একটি বিষয় খেয়াল করে দেখলেন যে, স্থানীয় পর্যায়ে নানাবিধ সমস্যাতো রয়েছেই সেই সাথে  একটি বড় সমস্যা হলো তথ্য নিয়ে গোপনীয়তা  অর্থ্যাৎ কোন প্রতিষ্ঠান অন্য কোন প্রতিষ্ঠানের সাথে কোন প্রকার তথ্য শেয়ার করতে চায় না হোক সেটা নিজের কিংবা কোন দাতা সংস্থার ফলে নিজেরাই একেকজন একেকজন এর প্রতিদ্বন্দী হয়ে উঠেছে অথচ তারা চাইলেই নিজেরা নিজেদের মধ্যে তথ্যের আদান প্রদান করে অনেক উন্নয়ন করতে পারতো ।

এর মধ্যেই ঢাকার বাহিরের চাকুরী ছেড়ে আবার পাড়ি জমালেন ঢাকায়  যোগদান করলেন ব্যবসায়িকদের একটি চেম্বার প্রতিষ্ঠানে । এখানে এসেও দেখলেন প্রায় একই অবস্থা সকল ব্যবসায়ীরাই নিজেদের তথ্যগুলো নিজেদের কাছে সংরক্ষিত রাখতে যেন ভালবাসে । আবার নতুন যারা উদ্যোক্তা হতে চায় তাদের জন্য সুনির্দিষ্ট কিছু প্রতিষ্ঠান ছাড়া তথ্য সরবরাহ করবার কেও নেই । ফলে একজন নতুন উদ্যোক্তার জন্য তার উদ্যোগ এর প্রাথমিক তথ্য সংগ্রহ করা একটু কষ্টকর  ।

নতুন উদ্যোক্তা এবং বেসরকারী প্রতিষ্ঠানগুলো যাতে সহজে তাদের সহায়ক তথ্য পেতে পারেন সে জন্য ফেইজবুক এ একটি পেইজ খোলা হলো যার নাম দেয়া হলো ”শাহিন’স হেল্প লাইন” । নিচের কাজের পাশাপাশি নিয়মিতভাবে বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের জন্য বিভিন্ন দাতা সংস্থার তথ্য, বিভিন্ন অনুষ্ঠানের সময়সূচী ইত্যাদি  আপলোড করে দেয়া হতো পাশাপাশি নতুন উদ্যোক্তাদের কোথা থেকে তারা ট্রেড লাইসেন্স করবেন , আর কি কি লিগ্যাল ডকুমেন্ট লাগবে ইত্যাদি বিষয়ে সহজ ভাষায় সময় করে করে লিখতে লাগলেন । উদ্যোক্তা বিষয়ক লেখাগুলো নিয়ে পরবর্তীতে  “উদ্যোক্তার অ আ, ক খ” নামে একটি বই বের করা হয় যা নতুন উদ্যোক্তাদের কাছে বেশ জনপ্রিয় এবং প্রয়োজনীয় বই হিসাবে বিবেচিত হয়েছে ।

দিনে দিনে ফেইজবুক পেইজ এ লাইক বাড়তে লাগলো , রাড়তে লাগলো অনুরোধও । বিভিন্ন বেসরকারী প্রতিষ্ঠান থেকে দাতা সংস্থার তথ্য পেয়ে আবার তারাই অনুরোধ করতো, প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট (প্রকল্প প্রস্তাবনা, আগ্রহপত্র, ধারনাপত্র) ইত্যাদি তৈরী  দেবার জন্য । অনুরোধগুরো ফেলতে না পেড়ে চাকুরীর পাশাপাশি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর হয়ে প্রকল্প প্রস্তাবনা, আগ্রহপত্র, ধারনাপত্র ইত্যাদি লেখা শুরু করলেন । ঠিক একই ভাবে যারা নতুন উদ্যোক্তা তৈরী হবার জন্য নিয়মিত লেখাগুলো পড়তেন তারাও অনুরোধ করতেন ট্রেড লাইসেন্স, ট্রেড মার্ক, ই-টিন সার্টিফিকেট সহ অন্যান্য ডকুমেন্টগুলো তৈরী করে দেবার জন্য । শাহিন’স হেল্প লাইন সত্যিকার অর্থ্যেই চেষ্টা করছিল সবাইকে সহযোগীতা করার জন্য নিজেদের নামের সার্থকতা তৈরীর জন্য । কিন্তু কোথায় যেন নিজের চাকুরী একটি বাধা হয়ে দাড়াচ্ছিল । আবার নিজের ভাল চাকুরীটি ছেড়ে নিজের উদ্যোগকে নিয়ে মাঠে নামা এ যেন নিজেই অজানার উদ্দেশ্যে নিজেকে ঠেলে দেয়া ।

নিজের সাথে যুদ্ধ করে, নিজের আস্থা, দক্ষতাকে পুজি করে ২০১৫ অক্টোবর মাস চাকুরী ছেড়ে পুরোপুরি উদ্যোক্তা হিসাবে কাজ শুরু করেন । শুরুতে নিজেই সব কাজ করতেন অর্ডার আনতেন আবার কাজ করে ডেলিভারীও দিয়ে আসতেন । নিজেই নিজের প্রতিষ্ঠানের সিইও আবার নিজেই নিজের প্রতিষ্ঠানের ডেলিভারী ম্যান । পরিবার, বন্ধু, উদ্যোক্তা বন্ধুদের সহযোগীতায় এখন প্রায় ৮ জনের একটি টিম কাজ করছে শাহিন’স হেল্প লাইন  এ ইতিমধ্যে প্রায় ৩০০টির বেশি প্রতিষ্ঠানকে কোন না কোনভাবে সেবা প্রদান করেছে এই প্রতিষ্ঠানটি ।

শাহিন’স হেল্প লাইন এর বিশেষত্ব হলো শাহিন’স হেল্প লাইন নতুন, ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের নিয়ে কাজ করে এবং তাদের জন্যই নানা রকম প্রডাক্ট তৈরী করে সেবা প্রদান করে আসছে । শাহিন’স হেল্প লাইন থেকে পরামর্শ নিতে কোন টাকা লাগে না একদমই ফ্রি ।  কোন নতুন উদ্যোক্তা বা যে কেও ফেইজবুক পেইজ, মোবাইল, ইমেইল যে কোন মাধ্যম ব্যবহার করে শাহিন’স হেল্প লাইন এর সাথে যোগাযোগ করতে পারে এবং পরামর্শ নিতে পারে । যদি বাস্তবিক অর্থে কোন সেবা প্রদান করে যেমন: কোন প্রকল্প প্রস্তাবনা তৈরী, লাইসেন্স তৈরী করে সেক্ষেত্রে কিছু সার্ভিস চার্জ নিয়ে থাকে ।

শাহিন’স হেল্প লাইন নতুন উদ্যোক্তাদের জন্য বাংলাদেশে প্রথম হোম সার্ভিস পরামর্শ প্রদানের মাধ্যমে ট্রেড লাইসেন্স সেবা চালু করেছে । এছাড়া নতুন উদ্যোক্তাদের জন্য মোবাইল এ্যাকাউন্টস সেবা, উদ্যোক্তা বান্ধব স্বল্পমূল্যে সফটওয়ার সেবা সহ নানা প্রকার সেবা চালু করেছে । এছাড়া অন্যান্য লিগ্যাল ডকুমেন্ট তৈরীর সেবা তো রয়েছেই ।

এ বছর শাহিন’স হেল্প লাইন নতুন উদ্যোক্তাদের জন্য একদম প্রাথমিক কিছু বিষয় নিয়ে   “উদ্যোক্তার প্রি-স্কুল” নামে  একটি বই বের করেছে ।

শাহিন’স হেল্প লাইন ২০১৫ সালে ফেইজবুক গ্র্রুপ “চাকুরী খুজবো না, চাকুরী দেব” থেকে নবীন উদ্যোক্তা স্মারক এ ভুষিত হয়েছে । এছাড়া শাহিন’স হেল্প লাইন বাংলাদেশের একমাত্র পরামর্শক প্রতিষ্ঠান যা কিনা আন্তর্জাতিক প্লাটফর্ম “UPWORK”  এ বাংলাদেশ চেপ্টার এ অন্তর্ভুক্ত  হয়েছে ।

 

যোগাযোগ

মো:আমিনুল ইসলাম 

সিইও

শাহিন’স হেল্প লাইন

মোবাইল : ০১৭১১১৯৩১৬৭

ইমেইল : [email protected]

ফেইজবুক পেইজ : www.facebook.com/shahinshelpline

Facebook Comments
,