বন্যার্ত মানুষের পাশে অনন্ত জলিল

নায়ক-প্রযোজক ও ব্যবসায়ী অনন্ত জলিল তাবলীগ জামায়াত নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছিলেন। এদিকে দেশের বন্যা পরিস্থিতি ক্রমেই বাড়ছে। বানভাসি মানুষের কষ্ট তাকেও তাড়িত করেছে। নিজের ফেসবুক পেজের ভিডিও বার্তায় তিনি বলেছেন সবাইকে বন্যা দুর্গতদের সহায়তায় এগিয়ে আসতে। এবার নিজেই বানভাসি মানুষের পাশে দাঁড়ালেন তিনি।

হেলিকপ্টারযোগে কুড়িগ্রামের চিলমারীতে পৌঁছান তিনি। সেখানে তিনটি ইউনিয়নের বন্যা কবলিত প্রায় ২ হাজার ৪০০ পরিবারকে ত্রাণ সহায়তা দিয়েছেন অনন্ত।

বৃহস্পতিবার কুড়িগ্রামে বন্যা দুর্গতদের মাঝে নিজ খরচে ত্রাণ বিতরণ করেছেন তিনি।

এদিন দুপুরে হেলিকপ্টারযোগে কুড়িগ্রামের চিলমারিতে পৌঁছান এ চিত্রনায়ক। সেখানে তিনটি ইউনিয়নের প্রায় ২৪’শ পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেন।

চিলমারিতে অনন্ত জলিলের হেলিকপ্টার নামার পর সেখানে বন্যা দুর্গতদের পাশাপাশি উৎসুক জনতার ব্যাপক ভিড় সামলাতে হিমসিম খেয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। তবে আগে থেকে সব আয়োজন করা ছিল বলে জানিয়েছেন থানাহাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক।

তিনি বলেন, তিনি আসবেন আগে থেকেই জানিয়েছিলেন। তাই আমরা সাধ্যমতো তাকে নিরাপত্তা দেয়া ও সুষ্ঠুভাবে ত্রাণ বিতরণ কাজে সহায়তা করেছি।’

বন্যা দুর্গতদের সাহায্য করতে কুড়িগ্রাম যাওয়া প্রসঙ্গে অনন্ত জলিল যুগান্তরকে বলেন, ‘বন্যার কারণে মানুষ কতটা অসহায় জীবন যাপন করছে নিজের চোখে না দেখলে বিশ্বাসই করবে না কেউ। অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়াতে আমি এখানে (কুড়িগ্রামে) এসেছি। নিজের সাধ্যমতো সহযোগিতা করার চেষ্টা করেছি। এই সহযোগিতা কিন্তু কোনো রকমের দয়া দাক্ষিণ্য নয়। এটা গরীব, দুঃখী, বন্যা দুর্গত মানুষের অধিকার। ইসলাম আমাদের সুস্পষ্ট নির্দেশ দিয়েছে, অসহায় মানুষের পাশে নিজেদের সামর্থ অনুযায়ী দাঁড়াতে হবে।’

তিনি আরও বলেন,  ‘আমার ক্ষুদ্র প্রচেষ্টায় কিছু মানুষ হয়তো দু’দিন পেট ভরে খেতে পারবে। এভাবে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। আমি সমাজের সামর্থবানদের বলবো, যার যতটুকু সামর্থ আছে তারা যেন ততটুকু নিয়েই বন্যার্তদের পাশে দাঁড়ান, তাদের সাহায্য করুন।’

প্রসঙ্গত, গত দু’মাস ধরে ঢাকা’সহ দেশের বেশ কয়েকটি স্থানে তাবলীগ জামাতের সঙ্গে থেকে ইসলামের দাওয়াত দিয়ে মানুষকে ইসলামের পথে আসার আহ্বান জানাচ্ছেন অনন্ত জলিল। আগামী নভেম্বরে তার স্ত্রী বর্ষার ঘরে দ্বিতীয় সন্তানের আগমন ঘটবে। অনন্ত-বর্ষা দম্পতির ঘরে আরিজ নামে তিন বছরের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে।

‘দেশে এখন ভয়াবহ বন্যা, চলুন আমাদের যা কিছু আছে, তাই নিয়ে সবাই বন্যার্তদের পাশে দাঁড়াই এবং আল্লাহ্‌র কাছে এই সংকট নিরসনের প্রার্থনা করি। দেশকে ভালোবাসুন দেশের মানুষের পাশে থাকুন।’ বন্যার্তদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য এভাবে সবার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জনপ্রিয় চিত্রনায়ক, পরিচালক, প্রযোজক ও ব্যবসায়ী অনন্ত জলিল। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এক ভিডিও বার্তা দিয়েছেন তিনি।

এই ভিডিও বার্তায় তিনি আরও বলেছেন,  ‘বন্ধুগণ, ইসলাম শান্তির ধর্ম। চলুন আমরা পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ি এবং আল্লাহ্ তায়ালার কাছে প্রার্থনা করি যেন তিনি আমাদের সবাইকে ইসলামের নিয়ম-কানুন মানার তৌফিক দান করেন। আমিন।’

এদিকে চলচ্চিত্রের রঙিন জগত ছেড়ে অনন্ত জলিলের হঠাৎ এই পরিবর্তন নজর কেড়েছে আন্তর্জাতিক মিডিয়াগুলোর। দেশের মিডিয়াগুলোর পাশাপাশি এখন আন্তর্জাতিক মিডিয়াগুলোতেও কয়েকদিন ধরেই আলোচিত হচ্ছেন তিনি। দ্য ডেইলি মেইল, এএফপি, আরব নিউজ, দ্য গালফ নিউজসহ আরও কিছু সংবাদ মাধ্যম অনন্ত জলিলকে নিয়ে প্রতিবেদন তৈরি করেছে।

 

Facebook Comments
,